যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের জর্জিয়া ডিসট্রিক্ট-৭ থেকে লড়ছেন রশিদ মালিক ও নাবিলাহ ইসলাম

155

বাঙালির প্রবাস ডেস্কঃ যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন ২০২০ নির্বাচনে কেন্দ্রীয় কংগ্রেসের প্রতিনিধি পদে জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের ডিসট্রিক্ট-৭ আসন থেকে দুই বাংলাদেশি নিজেদের প্রার্থিতা ঘোষণা দিয়ে ভোট যুদ্ধের মাঠে নেমেছেন। এদের একজন হচ্ছেন অতীতে দুইবার মুলধারার নির্বাচনে অংশ নেয়া ডঃ রশিদ মালিক এবং অপরজন হিলারী ক্লিনটন ও জেসন কার্টারের (প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টারের দৌহিত্র) বিগত নির্বাচনী প্রচারণার অন্যতম সংগঠক নতুন প্রজন্মের নাবিলাহ ইসলাম।

তাঁরা উভয়েই ডেমোক্র্যাটিক পার্টির টিকেট পেতে অপরাপর পাঁচ প্রার্থীর সাথে আগামী ১৯ মে তারিখে অনুষ্ঠেয় প্রাইমারী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন। সেই প্রাইমারী থেকে সর্বোচ্চ ভোটে বিজয়ী প্রার্থীই হবেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির দলীয় প্রার্থী। একইভাবে রিপাবলিকান পার্টির চূড়ান্ত প্রার্থী নির্বাচনেও প্রাইমারীতে নেমেছেন সাত জন রিপাবলিকান।

উল্লেখ্য, ডিসট্রিক্ট-৭ আসনে বিগত ১৯৯০ সালের পর ডেমোক্র্যাটিক পার্টির কোন প্রার্থী জয়ের মুখ দেখেনি। তবে গত ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে দীর্ঘদিন পর বিজয়ের সম্ভাবনায় ডেমোক্র্যাটিক পার্টির ঝানু রাজনীতিবিদ ক্যারোলিন বোর্ডক্স  ৫০০ ভোটের ব্যবধানে রিপাবলিকান পার্টির রব উডলের কাছে পরাজিত হন। তবে এবছর কংগ্রেস প্রতিনিধি রব নির্বাচনে অংশ না নেয়ার ঘোষণা দিলে ওই আসনটিতে উভয় দল থেকে ডজনেরও অধিক প্রার্থী সুযোগের সন্ধানে মাঠে নেমেছেন। অন্যদিকে বিগত নির্বাচনে পরাজিত ক্যারোলিন এবারও ভোটের মাঠে নিজের বিজয়কে নিশ্চিত করতে সরব হয়েছেন।

এরপরও দুই বাংলাদেশি প্রতিদ্বন্দ্বী শেষ পর্যন্ত মাঠ না ছাড়ার সংকল্পে প্রচণ্ড মনোবল নিয়ে জয়ের প্রত্যাশা করছেন এবং মূলধারার নাগরিকসহ বিভিন্ন অভিবাসী জনগোষ্ঠী, ভারতীয়, বাংলাদেশি তথা এশিয়ান অভিবাসীদের দোরে দোরে হাজির হয়ে এবং সভা সমাবেশের মাধ্যমে ভোট চাওয়ার প্রচারণায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

তবে একই আসনে দুই বাংলাদেশির প্রার্থী হওয়ার ঘটনাটি বাংলাদেশি কমিউনিটিতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। কারো কারো মতে, ডিসট্রিক্ট-৭ আসনের এই হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের মাঠে দুই বাংলাদেশির প্রতিদ্বন্দ্বিতা ভোট কাটাকাটির হাস্যকর পরিস্থিতি ছাড়া আর কিছু নয়। অনেকেই উভয়ের সমঝোতার মাধ্যমে যে কোন একজন বাংলাদেশির প্রার্থী হওয়ার পক্ষে মতামত প্রকাশ করছেন।

রশিদ মালিক ও নাবিলাহ ছাড়াও ডেমোক্র্যাটিক পার্টির অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বীরা হলেন ক্যারোলিন বোর্ডক্স, স্টেট সিনেটর যাহ্‌রা কারিনশাক, স্টেট প্রতিনিধি ব্রেন্ডা লোপেজ, সাবেক কাউন্টি চেয়ারম্যান জন ইভান্স ও এটর্নি মারকোস কোল। অন্যদিকে রিপাবলিকান দলের প্রার্থীরা হলেন স্টেট সিনেটর রিনি আন্টারম্যান, ল্যেইন হমরিক, ডঃ রিচার্ড ম্যাক কার্মিক, বেন বুলক, মার্ক গঞ্জালভেজ, ডঃ লেরাহ লী ও জাকুইলিন তিসেং।

স্মরণ করা যেতে পারে, গতবারের নির্বাচনে জর্জিয়ায় প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে স্টেট সিনেটর হিসেবে নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির জাতীয় কমিটির সদস্য শেখ রহমান চন্দন। তিনি এবারও একই আসন থেকে পুনঃ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এবং জয়ের প্রত্যাশা করছেন আগের মতোই। এছাড়া আরও দুই বাংলাদেশি যথাক্রমে জসিম উদ্দিন ডিসট্রিক্ট ৪৮ আসন থেকে এবং জাহাঙ্গীর হোসেন ডিসট্রিক্ট ৪১ থেকে স্টেট সিনেটর পদে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির টিকেট পেতে প্রাইমারীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

 

 

আরও সংবাদ
error: Content is protected !!