জর্জিয়া বিএনপির কাউন্সিল ৮ ডিসেম্বর।। আসছে নতুন কমিটি

707

 

বিশেষ প্রতিবেদকঃ যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টায় আগামী ৮ ডিসেম্বর রোববার অনুষ্ঠিত হচ্ছে জর্জিয়া বিএনপি’র কাউন্সিল। এই কাউন্সিলকে ঘিরে উৎসব মুখর পরিবেশের পাশাপাশি নতুন নেতৃত্বে কে কে আসছেন, এই নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন, প্রতিক্রিয়া ও উত্তেজনা।

১০৫ জন সদস্যের ভোট প্রদানের মধ্য দিয়ে নতুন কমিটি গঠিত হবে এই কাউন্সিলে। কাউন্সিলে অংশগ্রহণের লক্ষে লন্ডন থেকে শুক্রবার সন্ধ্যায় আটলান্টা এসে পৌঁচেছেন বিএনপির সহ আন্তজার্তিক বিষয়ক সম্পাদক ও উত্তর আমেরিকার সাংগঠনিকের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা আনোয়ার হোসেন খোকন। প্রধান অতিথি খোকন আটলান্টা বিমান বন্দরে এসে পৌঁছলে তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে বরণ করে নেন সভাপতি নাহিদুল খান সাহেল, সহ সভাপতি মামুন শরীফ, প্রধান নির্বাচন কমিশনার আলহাজ শাকুর মিন্টুসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

বর্তমান সভাপতি নাহিদুল খান সাহেল ছাড়া অন্য কোনো প্রার্থী নতুন কমিটির সভাপতি পদে মনোনয়ন পত্র জমা না দেয়ায় তিনিই পুনরায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন বলে দলের সদস্যদের কাছ জানা গেছে। তবে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক পদে মোহাম্মদ রহমান আজাদ মনোনয়ন জমা না দেয়ায় তিনি নতুন কমিটি থেকে বিদায় নিচ্ছেন বলে অনেকেই মনে করছেন। কেউ কেউ আজাদের দল থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করার এই আচরণকে দলীয় কোন্দল বলে ধারনা করছেন। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন সহ-সভাপতি মহাম্মদ মামুন শরীফ।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের এপ্রিলে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন শাকুর মিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছিলেন মোহাম্মদ রহমান আজাদ। পরে সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রহমান আজাদের বাড়িতে ২০১৫ সালের ২২ ডিসেম্বর এক ঘরোয়া সভায় আমন্ত্রিত বিএনপির আন্তজার্তিক বিষয়ক সম্পাদক এহসানুল হক মিলনের উদ্যোগে ওই বৈঠকে কমিটির সভাপতি শাকুর মিন্টুকে সভাপতির দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে প্রধান উপদেষ্টা করা হয় এবং সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পান নাহিদুল খান সাহেল।

গত ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত নির্বাহী কমিটির সভায় কাউন্সিলের দিন নির্ধারন করার পর ভোট গ্রহণের জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পান জর্জিয়া বিএনপির প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব শাকুর মিন্টু। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী মনোনয়ন পত্র দাখিলের শেষ দিন ছিলো ২৯ নভেম্বর।

সংগঠনের সভাপতি নাহিদুল খান সাহেল বিএনপির সকল সদস্যকে এই কাউন্সিলে অংশগ্রহণ করে গণতান্ত্রিক পরিবেশের মধ্য দিয়ে নতুন কমিটি গঠনে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

আজাদ মিডিয়াকে বলেন, ১০৫ সদস্যের যে ভোটার তৈৱি করা হয়েছে, সেখানে শুধু সভাপতির স্বাক্ষরই রয়েছে, সাধারন সম্পাদক হিসেবে আমার কোন স্বাক্ষর নেই। কাজেই এটা জর্জিয়া বিএনপির একাংশের কাউন্সিল। 

অন্যদিকে বিভেদ কোন্দলের অবসান ঘটিয়ে একটি সময়োপযোগী সঠিক ঐক্যবদ্ধ নেতৃত্ব তৈরির আহবান জানিয়েছেন দলের সিনিয়র সহ সভাপতি মোহন জাব্বার।

 

আরও সংবাদ
error: Content is protected !!