করোনা ভাইরাস নিয়ে “ জুুয়েল সাদত “ এর দুটো কবিতা

329

 

 

 

 

 

 

সময় যখন দুঃসময় 

জুয়েল সাদত

 

 

সময় এখন দুঃ সময়

হোম কোয়েরাইন্টেনে টিন এজ মনটা হাঁপাচ্ছে I

অক্সিজেনের ব্যাগের শেষটায় যতটুকু তরল থাকে,

তা পাইপের মধ্যে প্রবাহিত না হবার কষ্টে পুড়ায় মন

 

২৪ ঘন্টায় দিন, মনে হচ্ছে ৩৬ ঘন্টায় আটকানো ;

জীবনের সব ভুলগুলো,  স্প্যাম ফ্লোল্ডার থেকে দৃশ্যমান,

মাপ করে দিও তিথি তানহা,অনিতা,প্রমা আমায় I

আমি কিন্তু সব সময় সিরিয়াসই ছিলাম,

তোমরাই লিপিয়ারের মত দৃশ্যমান হলে অসময়ে ।

 

হোম কোয়ারান্টাইনে আজ আমি একজন সশ্রম কারাবন্দী,

আমি কিন্তু, বাসন ক্লীন,বিছানা করা,ফ্রীজ ক্লীন করতে  শিখেছি।

জান কল্পনা, এই কাজগুলো একটি বোর্ড  মিটিং থেকেও কঠিন

যখন লেবার স্ট্রাইকে যায়, তা হ্যান্ডল করা যতটা সহজ,

এর চেয়ে কঠিন বাসার তিনটা বিছানা করা,

আমি হোম কোয়ারান্টাইনে জীবনের হিসাবের লাল খাতায়  ঘষামাজা করছি, হাল খাতার মত ।

 

আমি আবার ত্রিশ সেকেন্ড নয়, পুরো  তিন মিনিট হাত ধুচ্ছি।

কিন্তু ভেবে পাচ্চি না ময়লা বা ভাইরাস তো আমার হাতে নয়, সেটা আমার মনেই।

 

আমি গুনে গুনে চৌদ্দ  দিনেই শুধরে নেব,  আগাছায় ভরা আমার জীবন।

আমি দুঃসময়টাকেই সুসময়ে রুপান্তরের পথে হাঁটছি,

 

জান কল্পনা, করোনা যাদের মেরেছে, আমিও তাদের  দলে।

আমি আমার ভাইরাসে পুর্ন পুরো জীবনটাই পাল্টে দিলাম।

 

 

 

 

 

 

 

করোনা নিয়ে আমার কোন মাথা ব্যাথা নেই 

জুয়েল সাদত

 

করোনা নিয়ে আমার কোন দুশ্চিন্তা নেই,

এটা নিয়ে ঘরওয়ালীর সাথে প্রতিদিন ঝগড়া

তিনি ব্যাস্ত উদ্বেগ উ্যকন্ঠার বেড়াঝালে

আমি ব্যাস্থ সাহিত্য নিয়ে,

কোন বইটা হবে,কে করবে শব্দ শৈলী কেমন?

প্রকাশক মৃদুল রহমান, বিপননে অনন্ত উজ্জ্বল এর সাথে ম্যারথন  আড্ডা, কখনো তা সাড়ে তিন ঘন্টা

ঘরওয়ালী আরো বিগড়ে যান, ভাংচুর বাসায় বাড়তে ই থাকে।

আমি যে নিরো, কাকে বোঝাই।

 

করোনা নিয়ে আমার বিন্দুমাত্র মাথা ব্যাথা নাই

মুক্তিযুদ্ধ, বিশ্বযুদ্ব, নানা সংকটে যদি সাহিত্য হয়, আবদান রাখে, তাহলে করোনাই ” তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ”।

 

করোনা নিয়ে, আমার উদ্বিগ্নতা শুন্যের  কোটায়,

আমি বেশ উপভোগ করছি, বিশ্বের পরাশক্তির নতজানুতে ।

একটি অদৃশ্যমান ভাইরাসে, বিশ্ববাসী গৃহবন্দী

সেটাতেই আমার যত উন্মাদনা, উচ্ছাস , উদ্বেগ

করেনা নিয়ে আমার কোনই বিলাপ নেই। ছিলও না কখনও।

 

যে বিশ্বের শক্তিগুলো দাপিয়ে বেড়াতো প্রতিদিন

আল্লাহর অস্তিত্বকে ভুলতেই বসেছিল, তারাই হাবুডুবু খাচ্ছে  দিনের পর দিন।

 

করোনা কে, আমি  বেশ উপভোগ করি আজ কাল

প্রতি মুহুর্তে মৃত্যুর ভয়ে যাদের ভিত থাকার কথা,

আজ তারাই, বুজতে শিখেছে,  বাচার লড়াই কতটা কঠিন।

বেচে থাকার দৌড়ে সবাই সাদা কালো এক।

করোনা নিয়ে মরে যাবার কোন ভয় নেই আমার,

আমি যে প্রতিদিন থেকে যুগ যুগ থেকে  করুনায় বেচে আছি।

” করোনা ” নিয়ে আমার কোন মাথা ব্যাথা নেই।

করোনা আমাদের শিখিয়েছে হারিয়ে যাওয়া বন্ডিং,

করোনাতে যদি বিশ্ব সাহিত্য রচিত না হয়-

তাহলে, আজ থেকে ডিকশিনারি থেকে সাহিত্য নির্বাসিত হউক চিরতরে ।

আমি সারা দিন মান বেচে থাকার চেয়ে ” করোনা তৃতীয় বিশ্বযুদ্ব ” সাহিত্য নিয়েই  মহা ব্যাস্ত।

 

আমার করোনা নিয়ে, সবার মত

নেই কোন আবেগ,উদ্বেগ,হাহাকার,আহাজারি,ছটাছুটি ।

আমি করনাকে বিধাতার করুনায় মেল্ট করেই, বেচে থাকব  অনন্তকাল। আজীবন। সরলরেখায়।।

 

জুয়েল সাদত

ফ্লোরিডা   / ইউ এস এ

march / 2020

sadat734@gmail.com

 

 

আরও সংবাদ
error: Content is protected !!